1. redwan.iub@gmail.com : admin2021 :
  2. admin@parwana.net : Parwana Net : Parwana Net
  3. editor@parwana.net : Parwana Net : Parwana Net
Logo
নামাযে ওয়াজিব ছুটে গেলে সাহু সাজদার নিয়ম
Reporter Name
  • ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১

প্রশ্ন-১: কোনো নামাযে দুই কিংবা ততোধিক ওয়াজিব ছুটে গেলে সাহু সাজদার নিয়ম কী?
প্রশ্ন-২: নামাযে সাহু সাজদাহ ওয়াজিব হওয়ার পর ভুলে সাহু সাজদাহ আদায় না করে নামায শেষ করে ফেললে কী করণীয়?

শাহ আব্দুল আজিজ জায়েদ
প্যারিস, ফ্রান্স

জবাব দিচ্ছেন-
মাওলানা আবূ নছর মোহাম্মদ কুতুবুজ্জামান তাফাদার
প্রিন্সিপাল ও খতীব, আল ইসলাহ ইসলামিক সেন্টার
মিশিগান, আমেরিকা।

জবাব-১: নামাযের মধ্যে একাধিক ওয়াজিব ছুটে গেলে তার দুটি সাজাদায়ে সাহু আদায়ই যথেষ্ট। এ সম্পর্কে মাজমাউল আনহুর কিতাবে লিখেছেন, وإن سها مرارا يكفيه سجدتان -নামাযী তার নামাযে কয়েকটি ভুল করলে তার জন্য দুটি সাহু সাজদাহ যথেষ্ট। (মাজমাউল আনহুর, ১ম খ-, পৃষ্ঠা ১৪৯)
জবাব-২: ভুলে সাহু সাজদাহ আদায় না করে নামায শেষ করে ফেললে মসজিদ থেকে বের না হওয়া কিংবা কথা না বলা পর্যন্ত কিংবা নামায ভঙ্গের কোনো কারণ সংগঠিত না হওয়া পর্যন্ত সাহু সাজদাহ আদায় করা যাবে। এ সম্পর্কে হাশিয়াতুত তাহতাবী কিতাবে লিখেছেন,
‎وفي الدر ولو نسي السهو أو سجدة صلبية أو تلاوية يلزم ذلك ما دام في المسجد اهـ يعني ولم يأت بمناف فإن وجد منه مناف أو خروج من المسجد قبل قضاء ما نسيه فسدت صلاته
-আদ-দুররুল মুখতার গ্রন্থে আছে, যদি কেউ সাহু সাজদাহ, সাজদায়ে সুলবী কিংবা তিলাওয়াতের সাজদাহ ভুলে যায় তবে মসজিদে থাকাবস্থায় নামায ভঙ্গকারী কিছু না করা পর্যন্ত উক্ত সাজদা করে নেয়া আবশ্যক। উক্ত সাজদা আদায়ের পূর্বে নামায ভঙ্গের কারণ ঘটলে কিংবা মসজিদ থেকে বের হলে তার নামায নষ্ট হবে (তখন নামায দুহরানো আবশ্যক হবে)। (তাহতাবী, ১ম খ-, পৃষ্ঠা-৪৬৩)
রদ্দুল মুহতার কিতাবে আছে,
أن السجود لا يسقط بالسلام ولو عمدا إلا إذا فعل فعلا يمنعه من البناء بأن تكلم أو قهقه أو أحدث عمدا أو خرج من المسجد أو صرف وجهه عن القبلة وهو ذاكر له لأنه فات محله وهو تحريمة الصلاة فسقط ضرورة فوات محله
-সালাম ফিরানোর দ্বারা সাজদাহ রহিত হয় না, যদিও সালাম ইচ্ছা করে ফিরানো হয়। তবে এমন কোনো কাজ করলে যা নামায বহাল থাকার পরিপন্থি হয়, যেমন: কথা বলা, সজোরে হাসি দেওয়া, ইচ্ছাকৃতভাবে উযূ নষ্ট করা, মসজিদ থেকে বের হওয়া কিংবা সাজদাহর কথা স্মরণ থাকা অবস্থায় কিবলার দিক থেকে মুখ ফিরানো ইত্যাদি, তখন নামায নষ্ট হয়ে যাবে (তাই এমতাবস্থায় সাহু সাজদাহ দেওয়া যাবে না, বরং নামায দুহরাতে হবে)। (রদ্দুল মুহতার, ২য় খ-, পৃষ্ঠা-৯১)

ফেইসবুকে আমরা...